মঙ্গলবার, ১৬ জানুয়ারী ২০১৮ ইং, ,

 

বউয়ের ভয়

বউ দোষারোপ করতেন, বউয়ের বিরক্তিকর খুঁতখুঁতে আচরণের জন্য দশ বছর ধরে পালিয়ে ছিলেন ৬২ বয়সের ব্রিটেনের বাসিন্দা ম্যালকম অ্যাপলগেট। বিয়ের পরে স্ত্রী বিভিন্ন উপায়ে তার জীবনকে একেবারে নাজেহাল করেছেন বলে তিনি অভিযোগ করেন। তিন বছর ধরে সেই খিটখিটে আর রগচটা নারীর সাথে আর কোন ভাবে থাকতে না পেরে, কোনো পথ খোলা না পেয়ে পালিয়ে যান বনে। বন বাসে জীবনকে উপভোগ করতে থাকেন তাই কাটিয়ে দেন পাক্কা ১০ বছর।

লন্ডনের ‘ইমাউস গ্রিনউইচ’ নামে একটি বাস্তুহীনদের আশ্রয়দাতা সংস্থাকে জানিয়েছেন সম্প্রতি তার জীবনের গল্পটি এভাবেই ষাটোর্ধ্ব এই বয়স্ক ভদ্রলোক।
img20171017_233906
তিনি তার বাড়ি থেকে হেটে হেটে পালিয়ে যেতে বাধ্য হন কারণ তার সাইকেলটি চুরি হয়ে যায় পথে।
১০ বছর সুতরাং অ্যাপলগেটের পরিবারের সবাই ভেবেছেন তিনি মারা গেছেন। হঠাৎ ভাইয়ের কাছ থেকে এত বছর পর ফোন পেয়ে চমকে যান অ্যাপলগেটের ভাই।

অ্যাপলগেটের গল্পটি তার মুখের ভাষাতেই তুলে ধরা হয়েছে ‘ইমাউস গ্রিনউইচ’-এর ওয়েবসাইটে। সেখানে ডেইলি মেইল ​​রিপোর্টাদেরকে অ্যাপলগেট বলেন, ‘বিয়ের পর আমার জীবন দিন দিন বিশৃঙ্খল হতে থাকে। আমি যতই কাজ করতাম, আমার স্ত্রী ততই রেগে যেত। আমি বেশিক্ষণ বাড়ির বাইরে থাকি, এটি সে পছন্দ করত না।’

‘তার এই কর্তৃত্বপরায়ণ ভাব দিন দিন মাত্রাধিক হারে বেড়ে গিয়েছিল। আমার বউ চাচ্ছিলেন,আমি যেন কাজ কমিয়ে দেই। তিন বছর তার সঙ্গে এক ছাদের নিচে কাটানোর পর সিদ্ধান্ত নিই,নিজের ভালোর জন্যই চলে যেতে হবে। এরপর কাউকে,এমনকি আমার পরিবারকেও না জানিয়ে,আমি সবকিছু গুছিয়ে বের হয়ে যাই… একেবারে ১০ বছরের জন্য হারিয়ে যাই।’

অ্যাপলগেট আরো বলেন, ‘পালানোর পর কিংসটনের কাছে একটি জঙ্গলে আস্তানা গাড়ি। এ সময় স্থানীয় বৃদ্ধদের জন্য একটি কমিউনিটি সেন্টারের বাগানে কাজ করেছি।’

‘ভালোই কাটছিল দিনগুলো। কিন্তু পরে ইমাউস গ্রিনউইচের কথা শোনার পর ভেবে দেখি, সেটিই আমার জন্য উপযুক্ত স্থান। সেখানে গিয়ে আমি একটি সাক্ষাৎকার দিই এবং থাকা শুরু করি।’

কিন্তু পরিবার ছাড়া থাকার সিদ্ধান্ত নিলেও পরবর্তীতে বোনকে চিঠি দেন এবং তার পরিবার তাকে খুঁজে বের করেন।
img20171017_233720
বর্তমানে তার ভাষ্যমতে,
“We now have a great relationship again.”

সুত্র: Fox News.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরও খবর