মঙ্গলবার, ১৬ জানুয়ারী ২০১৮ ইং, ,

 

পানি প্রবাহে অলৌকিক পাথরের উৎস

দুনিয়াতে সবচেয়ে বেশি নেয়ামত প্রাপ্ত জাতি হলো বনি ইসরাইল। তাদের মধ্যে একবার প্রচণ্ড পানি সংকটের অবস্থা বিরাজ করছিল। বনি ইসরাইলের ১২ জাতি/গোষ্ঠীর প্রায় ৬ লক্ষাধিক মানুষ এ পানির কষ্টে পতিত হন। এ পাথরের উৎস কোথায়? কি এমন পাথর, যার মধ্যে আঘাত করলে পানির নহর প্রবাহিত হয়।

হজরত মুসা আলাইহিস সালাম আল্লাহ তাআলার নিকট তাঁর উম্মতের জন্য পানির আবেদন করেন। আল্লাহ তাআলা তাঁকে একটি পাথরে আঘাত করার জন্য নির্দেশ দেন।

হজরত মুসা আলাইহিস সালাম তাঁর জাতির জন্য আল্লাহর নির্দেশে যে পাথরকে আঘাত করেছেন, তা কি সাধারণ পাথর ছিল নাকি বিশেষ কোনো পাথর ছিল, এ ব্যাপারে একাধিক মতপার্থক্য রয়েছে। বিভিন্ন বর্ণনাগুলো হলো-

>> হজরত কাতাদাহ বর্ণনা করেন, পাথরটি ছিল তুর পাহাড়ের, বনি ইসরাইল তা সঙ্গে সঙ্গে রাখতো। যখন পানির প্রয়োজন হতো মুসা আলাইহিস সালাম স্বীয় লাঠি দ্বারা আঘাত করলে ১২টি নির্ঝর প্রবাহিত হতো এবং তা দিয়ে বনি ইসরাইলের ৬ লক্ষ মানুষ পানির প্রয়োজন পূরণ করতো। (তাফসিরে কবির)

>> এটি ছিল জান্নাতি পাথর। হজরত আদম আলাইহিস সালাম জান্নাত থেকে নিয়ে এসেছিলেন। আর লাঠিটিও ছিল জান্নাতি। এ দুটি নিজিস একের পর এক হাত বদল হতে হতে হজরত শোয়ায়েব আলাইহিস সালামের নিকট পৌঁছে। তিনি এগুলো হজরত মুসা আলাইহিস সালামকে দান করেন। (তাফসিরে মাজহারি)

>> আল্লামা জমখশরি রহমাতুল্লাহি আলাইহি বলেন, এটি ছিল সাধারণ পাথর, যা মুসা আলাইহিস সালামের ওপর আদেশ হয়েছিল যে কোনো পাথরের ওপর আঘাত করার জন্য। মুসা আলাইহিস সালাম তাই করেছিলেন।

>> মুফাসসিরিনে কেরামগণ মুসা আলাইহিস সালামের একটি ঘটনার প্রতি ইঙ্গিত করে বলেন, মুসা আলাইহিস সালাম কখনো প্রকাশ্যে গোসল করতেন না বা উলঙ্গ হতেন না। যার ফলে তার কাওমের লোকেরা মনে করতো মুসা আলাইহিস সালাম একশিরা (অণ্ডকোষ ফুলে যাওয়া) রোগে আক্রান্ত।

একবার তিনি গোসল করার জন্য প্রসবণে ঢুকেছেন। তার পরিধেয় কাপড় খুলে একটি সাধারণ পাথরের উপর রাখেন। তিনি গোসল করার পর পাথরের দিকে উদ্যত হতেই দেখেন, পাথরটি দ্রুত বেগে ছুটে চলেছে।

মুসা আলাইহিস সালামও পাথরের পিছনে ছুটলেন। পাথরটি এলাকাবাসীর কাচারীর সামনে এসে থেমে যায়। যেখানে এলাকাবাসীরা উপস্থিত ছিল। তার কাওমের লোকেরা তাঁকে দেখে তাদের অহেতুক ধারণা পাল্টে নিল।

তার পর নির্দেশ হলো পাথরটি সংরক্ষণের জন্য। যা পরবর্তীতে কাজে আসবে। পাথরটি ছিল নরম এবং সাদা। প্রায় এক হাত পরিমান চতুর্ভূজ। প্রতিটি কোনে তিনটি উঁচু প্রান্ত ছিল। যেগুলো থেকে ১২টি নির্ঝর প্রবাহিত হতো।

পানি প্রবাহদানকারী পাথরটি ছিল হজরত মুসা আলাইহিস সালাম ও বনি ইসরাইল জাতির জন্য আল্লাহ তাআলার বিশেষ রহমত ও নেয়ামত। যা যুগে যুগে মুসলিম উম্মাহর জন্য আল্লাহ তাআলার মহা ক্ষমতার প্রমাণ বহন করবে। স্বীকৃতি প্রদান করবে বিশ্বনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের রিসালাতের।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে সব যুগের সব নেয়ামতের শুকরিয়া আদায় করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরও খবর