শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ ইং, ,

Monthly Archives: February 2018

 

সমান্তরাল

ফাতিমা মারিয়ম


(এক)

সাত মাস আগে বিয়ে হয়েছে শাহেদার। স্বামী রাশেদ আর শাহেদা গার্মেন্টসে এ কাজ করে। পাশাপাশি দুই রুম ভাড়া নিয়ে একই বাসায় শ্বশুর শাশুড়ি সহ থাকে। সংসারে আরো আছে দুই ননদ। দুজনই স্কুলে পড়ে। শাহেদার শ্বশুর ভ্যান এ করে সবজি বিক্রি করে। মোটামুটি সংসার ভালো চলে। বিয়ের পর যেহেতু এটা প্রথম ঈদ তাই শ্বাশুড়িসহ সবার মনে আশা শাহেদার বাপের বাড়ি থেকে এবার এই পরিবারের সবার জন্য কাপড়চোপড় আসবে!

-অ বউ তুমার বাপের বাড়ির থন কাপড় পাঠাইব কবে? তুমার মায়েরে কইবা শুধু জামা কাপড় দিলেই হইব না; ঈদের লাইগা চিনি, সেমাই আরো জা লাগে সব কিছুই দিতে অইব। নইলে সবার কাছে আমরা মুখ দেখামু ক্যামনে? তুমার মায়েরে মনে রাকতে কইবা এইটা তুমার বিয়ার পরে পরথম ঈদ।

শুধু শাশুড়িই নয় দুই ননদ, শ্বশুর, স্বামী সবার মুখেই প্রতিদিন এসব শুনতে শুনতে শাহেদার কান ঝালাপালা হয়ে যাচ্ছে! অথচ তারা একবারও ভাবছে না যে ওরা বাবা মা কিভাবে এতগুলো মানুষকে খুশি করবে? বাবা রিকশা চালায়, মা বাসাবাড়িতে ছুটা কাজ করে। শাহেদার আরও ছোট তিনটা ভাই বোন আছে। তাদেরকে নিয়ে কত কষ্ট করে চলতে হয়! শাহেদার বিয়ের পর তার আয়টাও এই পরিবারে চলে এসেছে। মায়ের কাছে এসব কথা বলতে তার মন চাইছে না।

সে একা একাই এই যন্ত্রণা বয়ে যাচ্ছে।

(দুই)

তিন ছেলের জন্য ঈদের কেনাকাটা শেষ করে বাসায় ফিরলো মিনা আর শফিক।

শফিক বলল- যাক! এবার আসল কাজটা শেষ হয়ে গেছে।

মিনা হাসিমুখে মাথা নেড়ে সায় দিল।

– মিনা, কাল তো আমি সময় দিতে পারব না, তুমি মার্কেটে গিয়ে তোমার জন্য যা লাগবে কিনে নিও।

-শুধু আমার জন্য কিনব? তুমি কিছু কিনবে না?

– আমার জন্য আর কি কিনবে? আমি শ্বশুর বাড়ির একমাত্র জামাতা তারাই তো আমাকে দিবে…হাহাহা। শ্বশুর বাড়ি থেকে কবে যে ঈদের গিফট পেয়েছিলাম মনেও নেই। বিয়ের পর দুই তিন বছর দিয়েছিল… এখন তারা তো মনে হয় ভুলেই গেছে এই সব সামাজিকতা।

মিনা পাশের রুমে গিয়ে চোখের পানি মোছে। স্কুল শিক্ষক বাবার কানে এসব কথা তোলার কোন মানেই হয়না। বাবার সংসারে তো আর ঝামেলা কম না। মা অসুস্থ, ছোট ভাই দুইটির পড়ালেখার খরচ, সংসার খরচ সব মিলিয়ে বাবা মায়ের কষ্টের কথা মনে করে সে চুপচাপ সব সময়ই শফিকের এসব কথা সহ্য করে যায়। অথচ শফিক ভালো চাকুরী করে ভালো বেতন পায়। বাচ্চাগুলো এত ছোট সেজন্য সে নিজেও কোন জব করতে পারছে না। দাঁতে দাঁত চেপে সে এসব অপমান সয়ে যায়।

(তিন)

হিমেল বাসায় এসে দেখে মৌ বেশ খুশী!

-এই শোন না! আজকে আম্মু এসে টাকা দিয়ে গেছে। চল দুই একদিনের মধ্যেই কেনাকাটা শেষ করে ফেলি। আগে আব্বুর দেয়া টাকার ঈদ শপিং শেষ করি!

– বল কি! টাকা দিয়ে গেছে? আমিতো ভাবলাম এবার শ্বশুর শাশুড়ির সাথে দেশের বাইরে গিয়ে ঈদ শপিং করব! বিয়ের পর প্রথম ঈদে সিঙ্গাপুর নিয়ে গিয়েছিল! মাত্র একবার!! এতো টাকা দিয়ে তোমার আব্বু করবে টা কি শুনি? মেয়ে আর জামাইকে একটু মনের মত কেনাকাটাও করতে দিতে পারে না?

– দেশের বাইরে যেতে এত ইচ্ছে করে? তোমার নিজের টাকায় যাও না! আমার আব্বুর আশায় থাক কেন? তোমার তো প্রচুর টাকা। এমন তো না যে তোমার নিজের কিছু নেই। লজ্জা করে না পরেরটা আশা করতে? তারা যা দিয়েছে তা যদি তোমার পছন্দ না হয় তা হলে তোমার কিছু কেনা লাগবে না! আমি আমার জন্য আর হৃদিতার জন্য কিনে নেব! যত্তসব!!!

– তুমি দেখি রেগে যাচ্ছ! আমি কোন কথাটা মিথ্যা বললাম!

-রাগব না তো কি করব? সব সময় তুমি এমন সব কথা বল! কত সহ্য হয়! তুমি এসব কথা বন্ধ না করলে আমি হৃদিতাকে নিয়ে আম্মুর কাছে চলে যাব।

-আহা! রাগ করছ কেন? আচ্ছা চল,
আগামীকাল শপিং সেরেই ফেলি।

অনলাইন এক্টিভিটিস

 

রান্নার টুকিটাকি টিপস (রকমারি

রোজকার রান্না এবং রান্নাঘরকে গোছালো রাখতে টুকিটাকি অন্যতম কিছু উপকরণ সম্পর্কে জানি। ধরুন, পেঁয়াজ মত ঝাঁঝালো একটি মসলা উপাদানটি কাঁটার সময় চোখ জ্বালা করে, চোখে পানি চলে আসে। কি করলে এ সমস্যা সমাধান হতে পারে। এরকম সাতটি বিষয় আলোকপাত করা হল:

ঝাঁঝালো পেঁয়াজ

ঝাঁঝালো এ মসলা উপাদানটি কাটার সময় চোখ জ্বালা করে, চোখে পানি চলে আসে। একারণে না কেঁদে পেঁয়াজ কাটার জন্য চুইংগাম চিবুতে থাকুন।

পিঁপড়া সমাচার

মাঝেমধ্যে ঘরে পিঁপড়া তার সদলবল নিয়ে আয়োজন পাতে। এ সময় ছোট বড় সকলকে পিঁপড়ার কামড়ে অতিষ্ঠ হতে হয়। ছোট্ট একটি কাজ করতে তা থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে ঘরে ‘শসার খোসা’ ফেলে রাখুন।

ইঁদুরের যন্ত্রণা

শহরের চেয়ে গ্রামে এ সমস্যাটি বেশ প্রকট। এক্ষেত্রে সহজে ‘গোলমরিচ’ ব্যবহার করে এ সমস্যাটি থেকে সমাধান পাওয়া যায়।

আয়না কাঁচে অস্পষ্ট

নেলপালিশের জন্য ব্যবহৃত স্প্রিড ব্যবহার করে সহজে আয়নাকে ঝকঝকে করা যায়।

মাথার চুলে অথবা কাপড়ে চুইংগাম

মাথার চুলে ভুল করে চুইংগাম লেগে গেলে পমেট(মেরিল অথবা ভেসলিন) লাগিয়ে সহজে ওঠানো যায়। তাছাড়া কাপড়ে লাগলে কাপড়টিকে ফ্রীজে রেখে দিলে ঘন্টাখানেক তাহলে চুইংগাম ছেড়ে যাবে।

ডিম সিদ্ধ খোসা ছাড়ান

ডিমের খোসা ছাড়ানোর আগে যদি পানিতে লেবুর রস চিপে দেওয়া যায় তাহলে সহজে এবং সুন্দরভাবে খোসা ছাড়ানো যায়।

সাদা কাপড়ে বাড়তি উজ্জ্বলতা

সাদা কাপড় পরিষ্কার করে ধুয়ে তা আবার লেবু সহ গরম পানিতে ১০মিনিট রাখলে পানি থেকে উঠাতে দেখা যাবে উজ্জ্বলতা বেড়ে যায়।

 

পিতা পুত্রের আত্মকাহিনী

গাজী আনোয়ার শাহ্


পৃথিবীতে নিজের খুশিমত আসিনি, খুশিমতো চলেও যাব না। জীবন হাত ধরে নিয়ে এসেছিল বলেই এসেছি। মৃত্যু
হাত ধরে নিয়ে চলে যাবে, তখন চলে যাব।

সব সময় বৃষ্টির ফোঁটার হাত থেকে বাঁচাত। রাতের বেলা আকাশের তারা গোণা হতো এই বটগাছের ছায়ায় বসে। হঠাৎ বটগাছটা বাতাসে মিলিয়ে যায়, মিলিয়ে যাওয়ার আগ পর্যন্ত বুঝিনি, এর মর্ম কি। আজ বুঝি।

ওহ হ্যাঁ,বাবার কথা বলছিলাম আর কি।

“বাবা”এই চরিত্রটা একটু অদ্ভুত। কখনো হয়ত খুব কাছ থেকে আপনি তাকে পাবেন না। তবে দুরে গেলেই হয়ত বুঝতে পারবেন বাবা নামক এই মানুষটি আপনার কত কাছে ছিলো। প্রত্যেক বাবার কাছেই তার মেয়ে রাজকন্যা এবং তার ছেলে রাজপুত্র । এই বাবা তার সন্তানের জন্য কতটা ছাড় দিয়ে থাকেন তা হয়ত একটা ছেলে বাবা হওয়ার আগে টের পায় না।

জানেন, আমাদের দেশের মায়েরা সন্তানদের সারাদিনই বকাবকি করে, আর সে সময়টাতে সন্তানের আশ্রয়স্থল থাকে বাবা। মায়ের বকাবাদ্য হয়ত বাবার কোল পর্যন্ত শোনা যায় না। তাই পরম শান্তিতে বাবার কোলে মাথা রেখে ঘুমিয়ে পড়া যায়। তবে, বাবারাও হয়ত রাগে। সে সময়টাতে হয়ত মায়ের কোল পর্যন্ত গিয়েও সন্তানের নিস্তার হয় না।

একটা কথা শুনেছিলাম, একটা মেয়ে তখনই মা হয় যখন সে জানতে পারে সে মা হতে চলেছে। আর একটা ছেলে তখনি বাবা হয় যখন সে তার নিজ সন্তানকে কোলে নিয়ে দুচোখ ভরে দেখতে পারে।

আমার বাবাটাও না ঠিক একই রকম ছিলো, শেষ সময়টায় বাবা খুব অসুস্থ ছিলো। সেবার জন্য নিজের সবটুকু দিয়ে চেষ্টা করে বাবাকে খুশি রাখতে পেরেছি বলে মনে হতো। বাবা সন্তান হিসেবে হয়তো দোয়া করতো। মাঝে মাঝে বাবা হাসতো, খুব অদ্ভুত একটা হাসি। হয়ত বুঝি নি, সেই হাসিটাতে ছিলো শত কষ্টের মাঝেও আমাকে খুশি রাখার জন্য বিশেষ প্রচেষ্টা।

আমার বাবাটা হয়ত খুব স্বার্থপর ছিলো, তাই যখনই কোন ভালো কাজ করতাম তখনই বলে উঠতো:-

আমার ছেলে।
আর খারাপ কাজ করলেই হয়ে যেতাম মায়ের ছেলে।এটাই হয়ত প্রত্যেক বাবার রীতি।

সেই বাবাটা আজ নেই। হারিয়ে গেছে সেই বটগাছটার মত। আজ বুঝি, এই বাবাটা আমার কত কাছে ছিলো।আমার এখনো মনে পড়ে বাবার সাথে আমার শেষ স্মৃতিগুলো। পাশেই বসা ছিলাম শেষ সময়টা পর্যন্ত।

ছয় মাস হতে চললো ক্যাম্পাস, বন্ধু, আড্ডা কোন কিছুতেই কেউ খুঁজে পায়নি আমাকে। আমিতো বাবার মাথার পাশে বসে বাবাকে বেঁচে থাকার স্বপ্ন দেখাতাম। বাবার সাথে গল্প করতাম। বাবার খত মাংসের ড্রেসিং করতাম। মাঝে মাঝে গোস্তের স্তুপ কেটে তার উপর আমাকেই ব্যান্ডেজ করতে হতো। রক্ত, পুঁজ, ঘণ্টার পর ঘণ্টা কাটা ছেঁড়া আমাকে বিরক্ত করতে পারেনি, আমি বাবাকে ভালোবাসি। বাবার কোলে শিশুবেলা ঘুমাতাম। তাই আমিও গল্প বলে বাবার ঘুম পাড়াতাম।
বাবা নয় কেবল পুরো পরিবারের মধ্যমনি হয়ে উঠেছি। আমার অনুপস্থিতি কেউ মেনে নিতে পারতো না।

শেষ সময়টা বাবাকে কালেমা পড়াচ্ছিলাম আর মুখে হালকা পানি দিলাম। তখনো বুঝতে পারিনি বাবা ঠিক এখনি এতিম করে চলে যাবে। খুব কষ্ট পেতো বাবা, কিন্তু সব সময়ই একটি দোয়া করতাম বাবা তোমার অসুখটা যেন না বেড়ে যায়, যেভাবে আছো, থাকো। আমি এখানেই স্বর্গের সুখ খুঁজে পেয়েছি। সন্ধ্যে বেলা প্রায়শই ঘরে থাকা হয় না। কিন্তু বাবার মৃত্যুর দিন আমি বিকাল থেকেই ঘরে।

বাবা আজ আর নেই। আমি কান্না করিনি। কেনো জানি ভুলে গিয়েছিলাম কান্না করতে। আমি পারি না কাঁদতে। সবাই আকাশ ভারি করে ফেলছে, আমি নিতান্তই চুপ। আমার কান্নাগুলোকে হিমালয়ের স্তুপের নিচে চাপা দিয়ে দিয়েছি।

(মাইকে ভেসে আসছে
“একটি শোক সংবাদ…..।” লইন্নালিল্লাহির………রাজীউন।
মরহুমের জানাযার নামাজের সময়…………. )

পুরোটা রাত ধরেই বাবার নিথর দেহের পাশে নিশ্চুপ বসে আছি। তখনো আমি কান্না করিনি। হয়ত বুঝতে পারছি ঠিক করে নিজের ব্যাথার পাহাড় ভাঙ্গবো। এখনো কান্না করি না, শুধু মাঝে মাঝে আকাশের দিকে তাকিয়ে জ্বলজ্বল করা তারাগুলোর মাঝে বাবাকে খুঁজি। হয়ত একদিন খুঁজে পাবো বাবাকে ওই দূর আকাশে, যে আমায় দেখে হাসছে আর দোয়া করছে।

বাবার দেহকে চার খুঁটির খাটে নিয়ে সকালেই বের হলাম ইদগাহের দিকে। নামায হবে, শেষ নামায। আমিই নামায পড়াই। বাবারও তাই ইচ্ছা ছিলো। শেষ করে নিয়ে চললাম স্থির পায়ে গোরস্তানের ছোট্ট সে ঘরের দিকে। পিছনে মানুষের স্রোত। নির্বাক আমি। বাবাকে রেখে দিলাম সে ঠিকানায়, যে ঠিকানায় যাবে বলে জন্মেছিলো বাবা। আজ তাকে রবের কাছে সমর্পণ করে দিলাম। মাটির পর মাটি পড়ছে। কিছুক্ষণের মধ্যেই অদৃশ্য হয়ে গেল বাবা।

ফিরে আসছি ঘরের দিকে, বাবাকে একা রেখে অন্ধকারের সে ছোট্ট কুঠিরে। কাল পর্যন্ত আমার সব ছিলো, ঠিক এখন আমি এতিম। গভীর রাত এখন, শুয়ে আছি বাবার স্মৃতিকে বুকে জড়িয়ে। যে খাটে বাবা নির্বাক শুয়ে ছিলেন মাসের পর মাস। আজ একাই শুয়ে আছি আমি।

বাবা এখন আমি তোমার জন্য কাঁদবো। পৃথিবীর সব ঘুমিয়ে পড়েছে, নিশ্চুপ চারিপাশ। নিরব, নিথর, ঘুটঘুটে অন্ধকার। এ সময়ে বাবা ঘুম থেকে উঠে রবের দুয়ারে হাত তুলো কাঁদতো। আজ আমি রবের কাছে কেঁদে বলছি, হে প্রভু তুমি বাবাকে জান্নাতের মেহমান করে নাও। তোমার প্রিয় পাত্র হিসেবে কবুল করো। (আমিন)

ভালো থাকুক সকল বাবারা। এপারের অথবা ওপারে।

পর্ব -১
আনোয়ার শাহ্
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়,
আরবি বিভাগ,
৪র্থ বর্ষ।

 

টিনএজারদের জন্য প্রেমের গল্প

আফরোজা হাসান


গতকাল ক্লাস শেষে যখন সবাই মিলে গল্প করছিলাম এক স্টুডেন্ট তার জীবনে পড়া প্রথম প্রেমের গল্প বিষয়ক অভিজ্ঞতা শেয়ার করেছিল ক্লাসের সবার সাথে। প্রেম ব্যাপারটা আসলে কি বোঝার জন্যই সে উপন্যাস হাতে তুলে নিয়েছিল। এবং প্রেম সম্পর্কে ধারণা আরো ঘোলাটে করার মধ্যে দিয়ে তার উপন্যাস শেষ হয়। সে বলছিল টিনএজারদের জন্য স্বচ্ছ, সুন্দর ও সঠিক প্রেমের গল্প লেখা দরকার। যেখানে গল্পে গল্পে তারা জেনে ও বুঝে যাবে প্রেম ব্যাপারটা আসলে কি এবং শরীয়তে এই বিষয়ে কি নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এছাড়া টিনএজে দেহ ও মনে যে পরিবর্তন সাধিত হয় তার ফলে আবেগের যে জোয়ার-ভাটার সৃষ্টি হয় এবং যে যে রূপে তা বাইরে বেড়িয়ে আসতে চায় সেই ব্যাপার গুলোও সুন্দর করে বিশ্লেষণ করা থাকবে গল্পের বইতে। যাতে আবেগকে কিভাবে নিয়ন্ত্রণ করা যায় সেই ব্যাপারেও একটা ধারণা পেয়ে যায় গল্প পড়ে।

বেশ কিছুদিন আগে এক বোন ফোন করে খুব চিন্তিত কণ্ঠে জানিয়েছিলেন তার বারো বছর বয়সি মেয়েটি আজকাল খুব প্রেমের গল্প-উপন্যাস পড়তে পছন্দ করে। বারবী কার্টুন গুলোর খুব ভক্ত হয়ে উঠেছে। কার্টুনে যখন প্রিন্স ও প্রিন্সেস রোমান্টিক মুহুর্তে থাকে বা কথা বলে বোনটি খেয়াল করেছেন তার মেয়ের চেহারাতে গোলাপী আভা ছড়িয়ে পড়ে! ঠোঁট টিপে মেয়ে হাসে! মাঝে মাঝে নাকি দীর্ঘশ্বাসও ফেলে মৃদু মৃদু! বোনটি খুবই চিন্তায় পড়ে গিয়েছেন মেয়েকে নিয়ে। চিন্তায় পরাটা অবশ্য স্বাভাবিক। সন্তানের চিন্তায় মায়ের মন সবসময় চিকন একটা দড়ির উপর দাঁড়িয়ে থাকে। যার নীচে থাকে জ্বলজ্বলে আগুণ কিংবা অথৈ পানি। এখন সার্কাসের দড়কাবাজের ট্রেনিং তো আর সব মায়েদের থাকে না। সুতরাং প্রতি মুহুর্তে ‘কি হয়’ ‘কি হয়’ অর্থাৎ, পড়ে যাবার ভয়।

গতবছর বড় ভাইয়ার কন্যারত্নাটি রোমিও-জুলিয়েট পড়ার আবদার করেছিল। ভাইয়া আমাকে ফোন দিয়ে বললেন, এটা আমি কিছুতেই মানতে পারছি না যে, আমার মেয়ে তার জীবনের প্রথম লাভ স্টোরি পড়বে রোমিও-জুলিয়েট! শিক্ষণীয় তো কিছুই নেই এই গল্পে। ধোঁকা, মিথ্যা, আত্মহত্যার মত জঘন্য সব উপাদানে ঘেরা পথে চলে আমার মেয়ে ভালোবাসার ভুবনে প্রবেশ করবে? ভালোবাসার কারণে সবকিছু তুচ্ছ করা কি ঠিক? সম্পর্ক বা ভালোবাসার দাবী কি জীবনের চেয়ে বেশি হওয়া উচিত? আমার মনেহয় না। কারণ আমাদের জীবন তো প্রকৃত পক্ষে আমাদের নিজের না। আমাদের জীবন আমাদের কাছে আল্লাহর দেয়া আমানত। তাই জীবনের চেয়ে মূল্যবান কিছুই থাকা ঠিক না মানুষের কাছে। জীবন নেই তো কিছুই নেই। জীবনই যদি না থাকে ভালবাসা, স্বপ্ন, বন্ধন সবই তো অর্থহীন।কাউকে ভালোবেসে জীবন দিয়ে দেয়ার মত ইউজলেস আর কিছুই নেই দুনিয়াতে। তাহলে এমন ইউজলেস কাহিনী কেন পড়তে দেবো আমার মেয়েকে?

আমি সত্যি খুব অবাক হয়েছিলাম সেদিন ভাইয়ার কথা শুনে। এভাবে আমি কখনোই চিন্তা করিনি। গল্প-উপন্যাস-নাটক-সিনেমা-কার্টুন মনকে প্রভাবিত করে সেটা আমিও জানি। কিন্তু কোন মনে যখন সবকিছুর সংজ্ঞা তৈরি হচ্ছে সেই মনকে এইসব ভুল উদাহরণ থেকে বাঁচিয়ে রাখাটা কতটা জরুরি সেটা সেদিন অনুভব করেছিলাম। প্রেম-ভালোবাসার নিদর্শন হিসেবে যাদের নাম ব্যবহার করা হয় অর্থাৎ, রোমিও-জুলিয়েট, লায়লা-মজনু, রাধা-কৃষ্ণ, রজকিনী-চণ্ডিদাস ইত্যাদি ইত্যাদি। এসব প্রেম কাহিনীর মধ্যে ভালোবাসা কোথায় সেটাই আমি খুঁজে পাইনা। এসব হচ্ছে মোহ, আবেগ আর পরকিয়ার কাহিনী। একে-অন্যের জন্য আত্মহত্যা মানে হচ্ছে জাহান্নামের কাহিনী। আর এসবকে যদি কেউ ভালোবাসা বলে তাহলে এমন ভালোবাসা থেকে আমি নিজেকে মাহরুম রাখাই পছন্দ করবো। জীবন দেয়া কখনোই ভালোবাসার গভীরতা বোঝায় না। সেটা তো ভালোবাসাই না যা জীবনকে ধ্বংস করে দেয়।ভালবাসা তো সেটা যা আমাদেরকে নতুন করে বাঁচতে শেখায়। জীবনকে ফুলে-ফলে গড়তে শেখায়। অনন্ত জীবন একসাথে কাটানোর স্বপ্ন দেখায়। দুনিয়ার ক্ষণিকের জীবনকে তুচ্ছ তাচ্ছিল্য করতে শেখায়।

ভাইয়া কাগজ-কলম নিয়ে বসে গিয়েছিলেন প্রেমের গল্প লিখতে। লিখেছিলেন উনার সাংসারিক জীবনের ভালোবাসার গল্প। ভাইয়ার কন্যার জীবনে পড়া প্রথম প্রেমের গল্প ছিল ওর বাবা-মার সংসার জীবনের ভালোবাসার গল্প। সেদিন আবারো মনে হয়েছিল বাবা- মা’ই তো সন্তানদেরকে দেখাবে সামনে চলার পথ, পথের দিশা, পথ মাঝের চরাই-উৎড়াই, অতঃপর গন্তব্য। বাবা-মা যদি কোন ক্ষেত্রে নিজেদের দায়িত্ব পালন করতে অবহেলা করে, ব্যর্থ হয়। তাহলে সন্তানদের উপর সেটার প্রভাব পড়বেই। বাবা-মা না শেখালে কিন্তু সন্তানরা অজ্ঞ থেকে যাবে না। তারা হয়তো কোন ভুল মাধ্যম থেকে সেই জ্ঞানটা অর্জন করবে। যারফলে ভুলের পথে চলা সহজ হয়ে যাবে তাদের জন্য। বাবা-মা যেমন আঙ্গুল ধরে সন্তানদেরকে হাঁটতে শেখায়, চলতে চলতে পড়ে গেলে হাত বাড়িয়ে দেয় তাদের সামনে, যাতে আবার উঠে দাঁড়াতে পারে তারা। সন্তানদের মনোজগতেও বাবা-মার অবস্থান এমনটাই হওয়া উচিত। আঙ্গুল ধরে মনের আঁকাবাঁকা, উঁচুনিচু পথে বাবা-মাকেই হতে হবে সন্তানদের পথ প্রদর্শক। যতবার হোঁচট খেয়ে পড়বে সামনে বাড়িয়ে দিতে হবে হাত উঠে দাঁড়াবার জন্য।

কনসেপ্টটা অসাধারণ মনে হয়েছিল আমার কাছে। আসলেই কতই না সুন্দর হতো যদি প্রতিটা সন্তান ভালোবাসাকে জানতো বাবা-মাকে দিয়ে! প্রতিটা সন্তানের জীবনে পড়া প্রথম প্রেমের গল্প হত তাদের বাবা-মাদের জীবনের ভালোবাসার উপাখ্যান। তাহলে শুধু যে ভালোবাসার সঠিক জ্ঞান অর্জিত হতো সেটাই না। সাথে সাথে অর্জিত হতো জীবন-যাপনের নানাবিধ শিক্ষা। সন্তানরা জানতে পারতো জীবনে সুখী হবার পথে করণীয়-বর্জনীয়। এবং সেই আলোকে তারা আলোকিত করে নিতে পারতো তাদের জীবনের পথ। বর্তমানে আমরা এমন একটা সময় পার করছি যা সবদিক থেকে বৈরী আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য। তাই এটা সময়ের দাবী হয়ে দাঁড়িয়েছে জীবনের প্রতিটি ধাপের প্রয়োজনীয় শিক্ষা বাবা-মাকেই সকল দ্বিধা-সংকোচ ঝেড়ে ফেলে সন্তানদের সামনে উপস্থাপন করতে হবে।

টিনএজারদেরকে যে কোন ব্যাপারে বোঝানোর ক্ষেত্রে আরেকটা বিষয় খেয়াল রাখা দরকার। সেটি হচ্ছে, ওদের প্রশ্নের জবাবে শরীয়তের বিধান বা কুরআন ও হাদিস থেকে বাছাইকৃত অংশ বলে দেয়াটা আসলে খুব সহজ।

কুরআন বা হাদিসের রেফারেন্স শুনে ওরাও হয়তো বেশির ভাগ সময় চুপচাপ মেনে নেয়। কেননা শরিয়তের বিধানের ব্যাপারে দ্বিমতের কোন অবকাশ নেই।কিন্তু এতে প্রায় সময়ই ওদের অনুসন্ধিৎসু মন পুরোপুরিভাবে পরিতৃপ্ত হয় না। কারন সমাধান পেলেও মনের খোঁড়াক পায় না যথাযথ। তাই ইসলামিক ভাবে সমস্যার সমাধান দেবার সময় প্রথমেই খুঁজে বের করতে হবে কোন উৎস থেকে এই চিন্তাটা বা প্রশ্নটা ওদের মনে জেগেছে। অতঃপর প্রাসংগিক আলোচনা কোনদিকে প্রভাবিত হবে সেটা নির্ধারিত করে নিয়ে সেই আলোকে বিশ্লেষণ করতে হবে পুরো বিষয়টাকে। এবং সবশেষে মন্তব্যে কুরআন বা হাদিসের রেফারেন্স দিয়ে বুঝিয়ে দিতে হবে।

 

সখের সাইকেল

ডা.সাকলায়েন রাসেল


একটা মেডিকেলে চান্স পেলেই হলো
–আব্বা-আম্মার চাওয়াটা ঠিক এতোটুকুই ছিল। সে জায়গায় যখন চান্স পেলাম ‘ঢাকা মেডিকেল কলেজে’ তখন তাদের সে কি আনন্দ !

দু’জনে আমাকে কাছে বসিয়ে বলল, তোমার ফলাফলে আমরা আনন্দিত, গর্বিত। এর বিনিময়ে তুমি কি চাও বলো?

‘একটা’ সাইকেল কিনে দাও!!!

আমার এই সামান্য চাওয়ায় বাবা-মা দু’জন বিস্মিত হলেও খুব দ্রুত একটা সাইকেল কিনে দিলেন। বংশাল থেকে, দাম ৩২০০ টাকা।

ফার্স্ট ইয়ার থেকে থার্ড ইয়ার। সব বিনোদন যেন আমার সাইকেলকে ঘিরেই। সাইকেল চালিয়ে বাসা থেকে সোজা ফজলে রাব্বি হল। এরপর সিড়ির গোঁড়ায় গিয়ে সাইকেল ঘাড়ে নিয়ে এক দৌড়ে তিন তলা। সেখান থেকে আবার সাইকেল চালিয়ে আমার রুমে প্রবেশ।

মন খারাপ লাগলে সাইকেল চালাতাম। বিকাল হলে সাইকেল চালাতাম। জ্বর এলেও সাইকেল। এবারের ১৬ ডিসেম্বর, ফার্মগেট থেকে কারওয়ান বাজার। সকাল ৮ টা ৩০ মিনিট, শত শত সাইকেল।

রঙ বেরঙের সাইকেল… কত ছেলে মেয়ে একসাথে সাইকেল চালিয়ে যাচ্ছে ! মনটা ফিরে গেল মেডিকেল কলেজের সেই ফার্স্ট ইয়ারে!

ইদানিং সাইকেলের জনপ্রিয়তা বাড়ছে। মন চায় আবারও এর হ্যান্ডেল ধরি। পকেটে যা আছে তা দিয়ে ভাল একটা সাইকেলও কেনা যাবে। কিন্তু তা কি আর হবে? বয়স বাড়ছে…। মানুষ থেকে আবার ইতোমধ্যে ডাক্তারে পরিনত হয়েছি!!! পাছে লোকে যদি কিছু বলে? এই ‘পাছের লোকটাকে’ কেন যে এতো ভয়!!!!

সহকারী অধ্যাপক, ভাসকুলার সার্জারী
ইব্রাহিম কার্ডিয়াক, বারডেম।

 

অন্য, এক নীল ব্যাথা- বেবি ব্লুস

ফাতিমা খান


নীল আকাশ, নীল জল, নীল নির্জনতা কিংবা নীল নীল ব্যাথার কথা আমরা গল্প, কবিতা বা গানে অনেক শুনেছি। কিন্তু এমন এক নীল কষ্টের কথা কি কেউ জেনেছেন যা একজন মা সন্তান জন্মদানের পর থেকে ভুগেন? আমরা কজনে জানি তাদের কষ্টের কথা?

তাহলে আসুন একটা গল্প বলি। গল্প না ঠিক, সত্য ঘটনা।

ভদ্রমহিলা আমার ডাক্তার কলিগের স্ত্রী।ঘটনা তাদের তৃতীয় সন্তান জন্মের সময়ের। এমনিতে তিনি অত্যন্ত অমায়িক ও স্বামী সংসারের প্রতি বেশ যত্নশীল । কিন্তু কি যে হল, বাচ্চার জন্মের পর থেকেই তিনি হঠাত করে একদম বদলে গেলেন। সারাক্ষন কাঁদেন, খাওয়া দাওয়া বন্ধ, ঘুম নাই চোখে, বড় দুই বাচ্চাকে শুধু শুধুই বকা ঝকা করছেন, তার জীবনের কিছু বাকী নাই…জাতীয় কথাবার্তা বলেন।
এদিকে নানা জনে নানারকম কথা বলছে, ‘ বাচ্চা সুস্থ হয়েছে তো?’ ‘মেয়ে বাচ্চা বলে কি মন খারাপ?’ ‘মায়ের জন্য মন কাদছে কি? দেশে পাঠিয়ে দেন’ ইত্যাদি ইত্যাদি।

স্বামী বেচারা টেনশনে পড়ে গেলেন। ডিউটি করবেন নাকি ঘর সামলাবেন। ঘটনা চরমে পৌছালো যখন একদিন ভদ্রলোক বাসায় ফিরে দেখেন তার স্ত্রী চাকু নিয়ে বসে আছেন স্বামীকে খুন করবে বলে !

ডাক্তার সাহেব অবশেষে সব সামাল দিয়েছেন অনেক ধৈর্যের সাথে। চিকিৎসা বিজ্ঞানের জ্ঞান ভাল কাজে লেগেছিল সেদিন। এখন তারা ভালই আছেন।

প্রসুতি মায়ের এই সমস্যার নাম পোস্ট পার্টাম ব্লুস ( Postpertum blues) বা বেবি ব্লুস ( baby blues) অথবা পোস্টপার্টাম ডিপ্রেশন (Postpertum depression)।

আজ দেখা হয়েছে এমন আরেকজন মায়ের সংগে। দাতের চিকিৎসার জন্য আসলেও উনার প্রোফাইলে গাইনোকলজিস্ট এর কমেন্টে দেখলাম উনি পোস্ট পার্টাম ডিপ্রেশনে ভুগছেন। অযথাই কান্নাকাটি করছেন, স্বামীকে সহ্য করতে পারছেন না।

বেবি ব্লুস এ আক্রান্ত মায়েরা কিছুটা বিষন্নতায় ভুগেন। শতকরা প্রায় ১৫ জন মা ই বেবি ব্লুসে আক্রান্ত হন।কিন্তু আমরা অনেকেই কিংবা তার পরিবার ও স্বজনরা ব্যাপারটা বুঝতে পারিনা।সবসময় মন খারাপ থাকা, খাওয়া দাওয়া না করা, অকারণে কান্নাকাটি করা,ঠিকমত না ঘুমানো, কখনো কখনো ভয় পাওয়া এর কিছু লক্ষণ। সাধারনত সপ্তাহ দুয়েক এরকম সমস্যা স্থায়ী হতে পারে। কখনো এর বেশীও হয়।

লক্ষণগুলো যদি তীব্র হয়ে যায় একপর্যায়ে রোগিনীর সুইসাইডাল টেন্ডেন্সি হতে পারে। কখনো নিজের সন্তান বা স্বামীকেও খুন করার ইচ্ছে জাগতে পারে। এই অবস্থাকে বলা হয় পোস্ট পার্টাম সাইকোসিস।

জেনে রাখা ভাল যে বেবি ব্লুস এ আক্রান্ত মায়েরা কিন্তু মানসিকভাবে বিকারগ্রস্ত বা পাগল নন। তাদের সমস্যাগুলো সাময়িক। প্রসবের পরপর হরমোনের পরিবর্তনের কারণে এমনটা হতেই পারে। এসময় দরকার তার অনেক যত্ন আর সাইকোলজিকাল সাপোর্ট।পুষ্টিকর খাবার, রুটিন লাইফ ও রিল্যাক্স থাকলে দ্রুত সেরে ওঠা যায়। কখনও যদি এ সমস্যা দীর্ঘস্থায়ী হয় তবে ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা প্রয়োজন।

দশ দশটি মাস একটি ভ্রূনকে গর্ভেধারন, নিজের স্বাস্থ্য, পুষ্টি থেকে প্রতিদিন একটু একটু নিঃশেষ করে একটা পুরা মানব শিশুর বৃদ্ধি অত:পর প্রসব খুব নগন্য কোন ঘটনা নয়। এসময় তাদের দেহ, মন, হরমোন সবকিছুতেই এক বিরাট পরিবর্তন আসে। এমনিতেও একজন প্রসুতি মা পরিবারের সবার যত্ন আত্তির হকদার ও মধ্যমণি হওয়া উচিত। মনে রাখবেন একজন সুস্থ মা ই আপনাকে একজন সুস্থ সন্তান দিতে পারে।

লেখিকা: আল হিবা মেডিক্যাল গ্রুপ, জেদ্দা, সৌদি আরব।

 

এন্ডোমেট্রিওসিস: নারীদের জন্যে এক আতঙ্কের প্রতিশব্দ

ডা.মারুফ রায়হান খান


এন্ডোমেট্রিওসিস বিষয়টাকে একেবারে সহজ ভাষায় বোঝানো অনেকাংশে মুশকিল। জরায়ুতে ৩টি স্তর থাকে। একেবারে ভেতরের স্তরটাকে বলা হয় এন্ডোমেট্রিয়াম। এই এন্ডোমেট্রিয়ামের কোষ যখন জরায়ুর বাইরে অন্য কোথাও ছড়িয়ে পড়ে তখন তাকে এন্ডোমেট্রিওসিস বলে।

কোথায় কোথায় এটা ছড়াতে পারে ?

– ডিম্বাশয়
– গর্ভনালী
– পাউচ অফ ডগলাস
– পেটের ভেতর যে পর্দায় মোড়ানো থাকে সেখানে
– ব্রড লিগামেন্ট
– এপেন্ডিক্স
– আগে অপারেশান হয়েছে সে কাটা জায়গায়
– নাভী
– যোনি
– জরায়ুমুখ
– ফুসফুস
– নাক

কাদের বেশি হয়ে থাকে এ রোগ ?

১. ৩০-৪৫ বছর বয়সী নারী।
২. সাদাদের বেশি হয়।
৩. যাদের পরিবারে এ রোগের ইতিহাস থাকে।
৪. উচ্চবিত্ত পরিবারে।
৫. বিলম্ব করে বিয়ে করা।
৬. বিলম্ব করে সন্তান নেয়া।
৭. সন্তানহীন।

উপসর্গ কী কী থাকে ?

১. প্রায় ২৫ ভাগ নারীরই কোনো উপসর্গ থাকে না।
২. মাসিকের সময় তীব্র ব্যথা (৫০%)। মাসিক শুরু হবার কয়েকদিন আগেই ব্যথাটা ধীরে ধীরে শুরু হয় কিন্তু মাসিক চলাকালীন সময় এটা তীব্রতর হয়। মাসিক শেষ হবার পরেও কিছুদিন এ ব্যথা থাকতে পারে।
৩. যৌনমিলনের সময় তীব্র ব্যথা (২০-৪০%)।
৪. বন্ধ্যাত্ব (৪০-৬০%)।
৫. পেটে ব্যথা।
৬. বারবার প্রস্রাব হওয়া, প্রস্রাবে করতে অসুবিধা হওয়া, কখনও কখনও প্রস্রাবের সাথে রক্ত যাওয়া।
৭. পায়খানা করার সময় ব্যথা, ডায়রিয়া, পায়খানার সাথে রক্ত যাওয়া।
৮. দীর্ঘসময় ধরে ক্লান্তি, অবসন্নতা।

চিকিৎসা :

অল্পবয়সী বিবাহিত মেয়েদের বাচ্চা নিতে বলা হয়, এতে দেখে যায় স্বতঃস্ফূর্তভাবেই এ রোগ ভালো হয়ে যায়। এ রোগের চিকিৎসায় নিম্নোক্ত অপশনগুলো আছে।
১. হরমোনের মাধ্যমে চিকিৎসা।
২. অপারেশান
৩. হরমোন এবং অপারেশানের যৌথ চিকিৎসা
৪. রেডিওথেরাপি, ইত্যাদি ।

এন্ডোমেট্রিওসিস প্রতিরোধ করা যায় কী ?

এর প্রতিরোধের ব্যাপারে সুনির্দিষ্ট কোনো নীতিমালা পাওয়া যায় না। তবে তাড়াতাড়ি সন্তান নিয়ে নেয়া, নিয়মিত ব্যায়াম, নিয়মিত চিকিৎসকের চেক-আপে থাকা উপকার বয়ে আনতে পারে।

প্রভাষক
ফার্মাকোলজি বিভাগ
এনাম মেডিকেল কলেজ

 

মাইক্রোটিচ পদ্ধতি

আফরোজা হাসান


মাইক্রোটিচ একটি শিক্ষাদান পদ্ধতি। এই পদ্ধতিতে অল্প সংখ্যক শিক্ষার্থী নিয়ে ছোট ছোট কোন বিষয়বস্তু সম্পর্কে স্বল্পসময়ে পাঠদান করা হয়। বাংলায় একে বলে অনুশিক্ষন পদ্ধতি। মাইক্রোটিচিং পদ্ধতির তিনটি অংশ- মাইক্রো লেসন, মাইক্রো ক্লাস এবং মাইক্রো টাইম। এই পদ্ধতিতে শিক্ষাদানের সব কৌশল একত্রে আয়ত্ত না করে সামগ্রিকভাবে শিক্ষার বিষয়বস্তুকে ছোট ছোট অংশে ভাগ করে অনুশীলনের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের আয়ত্ত করানো হয়। মাইক্রোটিচিং মূলত নিয়ন্ত্রিত পরীক্ষাগারে বিকশিত হয়। এটি শিক্ষকদের শিখন দক্ষতা বৃদ্ধির কার্যকারী কৌশল হিসেবে বিবেচিত। এর লক্ষ্য শিক্ষাদান পদ্ধতিকে শক্তিশালী করা, ব্যক্তিগত সবল দিক ও উন্নয়নের ক্ষেত্র চিহ্নিত করা, শিক্ষার্থীর বোধগম্যতার উন্নয়ন সাধন, বিভিন্ন কার্যকর শিখন পদ্ধতির উন্নয়ন এবং কার্যকর ফলাফল প্রয়োগ ও গ্রহণ ক্ষমতার উন্নয়ন।

১৯৫০ সালের শেষ দিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের স্ট্যানফোর্ড ইউনিভার্সিটির ডুইট ডব্লিউ অ্যালেন, রবার্ট বুশ এবং কিম রোমনি প্রথম মাইক্রোটিচিংয়ের ধারণা উপস্থাপন করেন। ১৯৬০ সালের দিকে ডুইট ডব্লিউ অ্যালেন ও তাঁর সহকর্মীদের মাধ্যমে এই পদ্ধতি আরো বিকশিত হয়। তাদের উপস্থাপিত টিচিং পদ্ধতি হল টিচ, রিভিউ, রিফ্ল্যাক্ট এন্ড রিটিচিং। ১৯৭০ সালের কানাডার ব্রিটিশ কলাম্বিয়া এডুকেশন মিনিস্ট্রি তাদের প্রশিক্ষণ সহায়ক কার্যক্রম হিসেবে এই পদ্ধতি গ্রহন করে। ১৯৮০ ও ১৯৯০ এর দশকে এই পদ্ধতি আরো বাস্তবধর্মী ও কার্যকরী ভাবে দক্ষিণ আফ্রিকা ও চীনে বিকাশ লাভ করে। একবিংশ শতাব্দীর শুরু থেকে এই পদ্ধতি আধুনিক শিক্ষা পদ্ধতিতে সম্পৃক্ত হয়ে নতুন মাত্রা লাভ করে। বর্তমানে এই পদ্ধতি কানাডা আমেরিকা সহ বিশ্বব্যাপী অত্যন্ত জনপ্রিয় এবং কার্যকর একটি পদ্ধতি।

এটি মূলত শিক্ষকদের দক্ষতা বৃদ্ধির একটা শিক্ষা পদ্ধতি। আর প্রত্যাশিত দক্ষতা অর্জনের জন্য এই পদ্ধতিতে তিনটি ধাপ অনুসরণ করতে হয়। প্রথম ধাপ হচ্ছে-জ্ঞান আহরণ বা অর্জনের ধাপ, দ্বিতীয় হচ্ছে দক্ষতা অর্জনের ধাপ আর তৃতীয় হচ্ছে স্থানন্তর ধাপ। সাবজেক্টের সাথে সম্পর্কিত বিষয়ে কি শিখছে, পুর্ববর্তী শিক্ষার সাথে এর সম্পর্ক এবং ভবিষ্যতে এর প্রয়োগ সম্পর্কে সচেতন হওয়ার উদ্দেশ্যেই এই পদ্ধতি ব্যবহৃত হয়। মাইক্রোটিচ পদ্ধতিতে শিক্ষকদের মধ্যে নয়টি বিষয় প্রত্যক্ষ করা যায়-

১। পাঠ পরিকল্পনা। অর্থাৎ, যে বিষয়ে শিক্ষার্থীদেরকে পড়ানো হয় তার সুনির্দিস্ট উদ্দেশ্য ও সঠিক ধারাবাহিকতা বজায় থাকে টিচারদের মধ্যে।

২। আরোহী পদ্ধতি অনুসরণ। অর্থাৎ, ক্লাসে শুরুতেই শিক্ষার্থীদের দৃষ্টি আকর্ষন করা।

৩। উপস্থাপন। মানে হচ্ছে যে বিষয়ে আলোচনা করা হয় তার ব্যাখ্যা, বর্ননা, সঠিক বিশ্লেষণ ও উদাহরণ প্রদান করা।

৪। উদ্দিপনা পরিবর্তন। অর্থাৎ, শিক্ষার্থীদের অবসাদ বা একঘেয়েমি কাটিয়ে তোলার জন্য অঙ্গভঙ্গি, নড়াচড়া, সেন্স অব হিউমারের প্রয়োগের মাধ্যমে নীরবতা ও মানসিক অবস্থার পরিবর্তন করা।

৫। কণ্ঠস্বরের সঠিক ব্যবহার। সঠিক এবং স্পষ্টভাবে প্রতিটা শব্দ উচ্চারণ করা এবং প্রয়োজন অনুযায়ী টোনের ওঠা-নামা।

৬। শক্তি সঞ্চার। অর্থাৎ, শিক্ষার্থীদের সুবিধা-অসুবিধা সনাক্ত করে তাদের উৎসাহিত করা এবং সাড়া দেয়া।

৭। প্রশ্নোত্তর। মানে ধারাবাহিকভাবে প্রশ্ন করা, প্রশ্নের মোকাবেলা করা এবং প্রশ্নের সাথে সামঞ্জস্য বিধান করা।

৮। নীরবতা ও ইঙ্গিত। মানে হচ্ছে কথা না বলেও শারীরিক অঙ্গভঙ্গি ও ইঙ্গিতের মাধ্যমে বক্তব্য প্রকাশ করা।

৯। মূল্যায়ন। কি পরিমাণ উন্নতি বা অবনতি হচ্ছে তা দেখা।

( ম্যাগাজিনে বিশাল বড় করে লেখা ছিল মাইক্রোটিচ পদ্ধতি সম্পর্কে। এখানে আমি শুধু মূল অংশটুকু সংক্ষেপে লিখেছি। দাদুর পাঠশালাতে এতো তথ্য ঢোকানোটা জটিল লাগছিলো তাই আলাদা লিখে দিলাম)

 

সৌন্দর্যকে সুন্দরভাবে বিশ্লেষণ

মুশফিকুর রহমান আশিক


“সুন্দর” এর কোন নির্দিষ্ট সংজ্ঞা নেই। ফর্সা মানেই সুন্দর না ফ্রেশ মানেই সুন্দর এই জিনিসগুলা নিয়ে বিতর্ক করা অর্থহীন !!

তুমি ফর্সা হও, শ্যামলা হও, কালো হও কিংবা তোমার চোখ ছোট হোক, নাক লম্বা হোক আর কান বড় হোক কিংবা চুল কম থাকুক আর বেশি থাকুক। পৃথিবীর কোন না কোন প্রান্তে এমন কেউ আছে, যার কাছে শুধু তোমাকেই “সুন্দর” লাগবে !

তুমি যেমন আছো, তেমনই “সুন্দর” লাগবে। তোমার ছোট চুলই তার কাছে অসাধারণ লাগবে। তোমার বড় চুলের খোপার মাঝে সে আটকে যাবে। তোমার এলোমেলো চুলের মাঝে তার লুকিয়ে থাকা ভালোবাসাটুকু সে আঙ্গুল ছুঁইয়ে খুঁজে নিবে !!

তোমার ছোট ছোট চোখই তার কাছে মায়াময় লাগবে। তোমার বড় চোখের অতল গভীরতায় সে ডুবে যাবে। তোমার দৃষ্টিতেই সে হারিয়ে যাবে !!

তোমার কন্ঠ যেমনই হোক, সে মন্ত্রমুগ্ধের মত শুনতে চাইবে। তুমি গান গাইতে পারো আর নাই পারো, তোমার প্রতিটা কথাই তার জন্য গান হবে !!

তুমি উচ্চতা নিয়ে ভেবো না। এমন কেউ আছে, যে তোমার মত খাটো কাউকেই চায়, হাত দিয়ে নিজের বুকের সাথে আগলে ধরে রাখতে চায় সবসময়। তুমি লম্বা বলে একদমই টেনশন করো না একটুখানি মাথা উঁচু করে তোমার চোখের দিকে তাকিয়ে থাকতে কারো খুব ভালো লাগবে। এমন কেউ আছে। নিশ্চয়ই আছে!

তোমার গায়ের রং যেমনই হোক, সে চোখ বুজলেই তোমাকে দেখবে। সে শিল্পী না হয়েও কল্পনার ক্যানভাসে সবটুকু আবেগ দিয়ে তোমাকে আঁকবে। তোমার রংটাই তার তুলিতে একমাত্র রং হবে!

আয়নার দিকে তাকিয়ে তুমি মন খারাপ করো না। আশেপাশের দশটা মানুষের কথায় তুমি নিজেকে ছোট ভেবো না। তুমি শুধু অপেক্ষা করো। তুমি কালো না, ফর্সা না, খাটো না, মোটা না।
তুমি সুন্দর !!

তুমি মানো আর নাই মানো, তুমি সুন্দর। কারো কাছে তুমি অবশ্যই সুন্দর। তুমি শুধু অপেক্ষা করো। পৃথিবীর কোন না কোন প্রান্ত থেকে কেউ তোমাকেই খুঁজছে। তোমাকেই তার লাগবে। আর কাউকে না।

হুম, তোমাকেই !!”

লেখকের ফেসবুক:
https://www.facebook.com/ash.ashique.

 

গর্ভাবস্থায় আপনার ভ্রুণের সঠিক গঠন ও বৃদ্ধি- আপনার খাদ্যতালিকা

ডা.ফাতিমা খান


গর্ভাবস্থায় একটি ভ্রুণের গঠন ও বৃদ্ধি একটি পর্যায়ক্রমিক প্রক্রিয়ায় সম্পন্ন হয়। প্রথম ৪ সপ্তাহ ভ্রূণে একটি দৈহিক কাঠামো তৈরী হয়, অতঃপর পর্যায়ক্রমে হাত, পা, চোখ, নাক, কান সহ অন্যান্য অংগ-প্রত্যংগ গঠন হয়। ২৪ সপ্তাহের একটি ভ্রূনের স্বাভাবিক ওজন হয় ১.৪ পাউন্ড। এই ওজন ২৮ সপ্তাহ বা সাত মাসে ২.৫ পাউন্ডে বেড়ে যায়।

গর্ভকালীন শিশুর বৃদ্ধি ও বিকাশ যে ব্যাপারগুলো নিয়ন্ত্রণ করে তার মধ্যে অন্যতম হল মায়ের শারিরীক অবস্থা ও খাদ্যাভ্যাস।

একজন সুস্থ ও পুষ্টিকর সুষম খাদ্য গ্রহণকারী মায়ের সন্তান সাধারনত সুস্থই হয়ে থাকে। কিছু ক্ষেত্রে এর ব্যতিক্রম হতেও পারে।

গর্ভাবস্থায় প্রথম ৬-৭ মাসে বাচ্চার বৃদ্ধি হার তুলনা মুলকভাবে কারও কারও ক্ষেত্রে কম থাকে। এতে ভয় পাবার কিছু নেই। যদি ৭ মাসেও বাচ্চার ওজন ‘যদি একটু কমও হয়’ তবুও চিন্তার কিছু নেই, এ ক্ষেত্রে মায়েদের খাবারের দিকে বিশেষ ভাল করে নজর দিতে হবে। শেষের তিন মাস বাচ্চার ওজন বৃদ্ধি পায়। তবে বাচ্চার ওজন এর চেয়েও কম হলে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ মেনে ভিটামিন জাতীয় ঔষুধ সেবন করা যেতে পারে।

আসুন দেখে নেই কোন কোন খাবারগুলো খেলে বাচ্চার ওজন বৃদ্ধি পাবেঃ

(১)ভাত, রুটি, অন্যান্য, শর্করাজাতীয় খাবার- ওজন বাড়াতে শর্করাজাতীয় খাবারের জুড়ি নেই। ভাত বা রুটি ছাড়াও সুজি কিংবা ওটস ও গমের দানার স্যুপ খাওয়া যেতে পারে, এর সাথে মেশাতে পারেন পছন্দের মাংস বা সিজনিং বিভিন্ন সবজি ও ডিম বা পছন্দের মাংস দিয়ে নুডুলস প্রতিদিনের তালিকায় থাকতে পারে। গর্ভাবস্থায় রুচির তারতম্য হয় খুব বেশী। সেক্ষেত্রে একই খাবার ভিন্ন ভাবে খাওয়া যেতে পারে। যেমন ভাত ভাল না লাগলে পায়েশ, চালের গুড়ার রুটি বা পিঠা বা চিড়া দই বিকল্প খাবার হতে পারে।

(২)ফল ও শাকসবজি- রকমারী ফল বা ফ্রুট সালাদ অত্যন্ত পুষ্টিকর খাবার। কলাতে আয়রন ও অন্যান্য খনিজ উপাদান ভরপুর। ওজন বাড়াতে কলা আর আমের তুলনা নেই।প্রতিদিন খাদ্যতালিকায় কলা রাখা যেতে পারে। পাচমিশালি শাকসবজি রান্না বা স্যুপ করে দুবেলা খাবারের সাথে খেতে পারেন। ভিটামিন এবং অন্যান্য পুষ্টি উচ্চ মাত্রায় থাকে এসব খাদ্যে।
বিশেষজ্ঞরা বলেন ফল রস করে খাওয়ার চেয়ে এমনিতে ফল চিবিয়ে খাওয়া বেশী ভাল। পালং শাক, লালশাক, কচুশাক, লাউ কুমড়া, ঢেড়শ সহ সব ধরনের মৌসুমী শাকসবজি সবচেয়ে উপকারী। কমলা বা লাল সবজি বিটা ক্যারোটিন ও আয়রনের অন্যতম উৎস। তাই এগুলো নিয়মিত খাওয়া যেতে পারে। মিষ্টি আলু ওজন বাড়াতে ও খনিজ এর সরবরাহ করতে খুব সহযোগী।

(৩)ডাল ও অন্যান্য শস্যজাতীয় খাবার – অম্ল বা এসিডিটির যদি কোন সমস্যা না থাকে তাহলে ডাল বা ছোলা জাতীয় খাবার আমিষের অন্যতম উৎস। তবে এগুলো কাঁচা বা ভাজা খাওয়ার চেয়ে রান্না করে খাওয়াই উত্তম। মাছ, মাংসের পর এই লিগিউমস গুলো প্রোটিন যুক্ত খাবার যা গর্ভের সন্তানের ওজন বৃদ্ধি করে। এর মধ্যে আছে মুগ, মসুর, ছোলার ডাল, সীমের বিচি ইত্যাদি। ডালের স্যুপ বা পাতলা ডাল উপাদেয় ও পুষ্টিকরও বটে।

(৪)বাচ্চামুরগী বা কবুতর- অনেকের ধারণা শুধু দুধ বা ডিম বাচ্চার ওজন বৃদ্ধি করবে। এ ধারণা ঠিক নয়। বাচ্চা মুরগির ঝোল বা কবুতরের মাংস নিয়মিত খেতে পারেন। এটি বাচ্চার ওজন বাড়াবে ও সন্তান জন্মদানের পরও মাকে সুস্থ রাখতে সহায়ক হবে।

(৫)মাছ ও মাংস- সামুদ্রিক মাছে প্রচুর আয়োডিন থাকে ও প্রোটিনের ভাল উৎস। সামুদ্রিক বা নদীর মাছ বাচ্চার ওজন বৃদ্ধিতে কার্যকর। তবে তাজা ও কেমিকেলমুক্ত হতে হবে। সামুদ্রিক মাছের মধ্যে যেগুলো হজমে দেরি হয় বা মার্কারীযুক্ত থাকে সেগুলো না খাওয়াই ভাল। ছোটমাছ ক্যালশিয়ামের যোগান দেয় যা বাচ্চার হাড়ের গঠনের জন্য অপরিহার্য। এ সময় যেকোন এলার্জিক মাছ এড়িয়ে যাওয়া ভাল। রেডমিট বা গরু ও খাশির মাংসতে ওজন বৃদ্ধি ও আয়রনের যোগান দিতে খুব সহায়ক। গর্ভবতী মায়ের প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় মাছ ও মাংস অবশ্যই থাকা উচিৎ।

(৬)ড্রাই ফ্রুট ও বাদাম- এর মধ্যে আছে খেজুর, কিসমিস, শুকনো এপ্রিকোট, চিনাবাদাম, এলমোন্ড বা কাঠবাদাম, কাজু ইত্যাদি। পিনাট বাটার বা শুধু চিনাবাদামও দ্রুত ওজন বাড়ায়। খেজুরে রয়েছে প্রচুর পুষ্টিগুণ। সুতরাং গর্ভাবস্থায় শেষের দিকে মায়েদের প্রচন্ড ক্ষুধা লাগে এসময় খেজুর খেতে মায়ের দুর্বলতা কমবে পাশাপাশি বাচ্চার জন্য উপকারী।

লেখিকা: আল হিবা মেডিক্যাল গ্রুপ, জেদ্দা, সৌদি আরব।